ভাইরাল

হটাৎ রান্নাঘর থেকে বেরিয়ে আসল বিশাল কোবরা সাপ, ঘটল বিপত্তি, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

আগে মানুষ জন নিত্যদিনের খবর পাওয়ার জন্য চোখ রাখত টিভির পর্দায়‌। কিন্তু এখন ইন্টারনেটের দৌলতে আমরা সব খবরই বাড়িতে বসে মোবাইল ফোনেই দেখতে পাই। তাই মানুষজন এখন অনেক বেশী মোবাইল আসক্ত হয়ে পড়েছে। তারা নিজেদের জীবনটাকে খুঁজৈ নিয়েছে মোবাইলের মাধ্যমে। তাদের ভালো লাগা খারাপ লাগা সবটাই নির্ভর করে মানুষ কি দেখছে তার উপর। তাই বলা চলে ইন্টারনেট এখন মানুষের ভাবনা চিন্তা নিয়ন্ত্রণ করছে।

ইন্টারনেটে বহু অদ্ভুত অদ্ভুত ঘটনা ভাইরাল হয়। কেউ যদি নিজের কোনো ভালোলাগার মুহূর্ত ক্যামেরাবন্দী করে স্যোশাল মিডিয়ায় পোস্ট করে তবেই সেটা ভাইরাল হয়ে যায়। একজন মানুষের ভালোলাগা ছড়িয়ে পড়ে হাজার হাজার মানুষের মাঝে। অবশ্য অনেকে নানারকম সাহায্য চাইতেও স্যোশাল মিডিয়াতে আসে। স্যোশাল মিডিয়া হয়ে উঠেছে বিশ্বের দরবারে নিজেকে প্রকাশ করার একটা মাধ্যম। তবে শুধু মানুষই নয় এখানে বিভিন্ন পশু পাখিদেরও বেশ মজার মজার ভিডিও দেখতে পাওয়া যায়।

প্রত্যেকটা মানুষ সাপকে ভয় পায়। সাপ দুই ধরনের হয় বিষধর এবং বিষহীন। তবে সাপেরা মূলত নিজের আত্মরক্ষার জন্য মানুষকে আক্রমণ করে। যদিও অনেক সাপ‌ ব্যাঙ, পোকামাকড় খেয়ে নিজের জীবন ধারণ করলেও অনেক সাপ বড় বড় প্রাণীদের খেয়ে বেঁচে থাকে। তবে আগে মানুষ সাপ তাড়ানোর জন্য নানা কুসংস্কারের আশ্রয় নিলেও এখন তারা বনদপ্তরকে খবর দেয়। সেরকমই এক ভিডিও স্যোশাল মিডিয়া হ্যান্ডেলে ভাইরাল হয়।

এই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে রান্নাঘরে সাপ ঢুকেছে। সেই সাপকে ধরতে গেলেই সে ছোবল মেরে সব বাসনপত্র ফেলে দিচ্ছে। সাপ ধরতে গিয়ে মির্জা মোহম্মদ আরিফ তার ক্যামেরা ম্যানকে সাপটিকে ভালোভাবে দর্শকদের দেখাতে বলেন তারপর তিনি বলেন cyto toxic এবং neu roto xic এই দুই ধরনের বিষ এই সাপের শরীরে দেখা যায়। তিনি এই ভিডিওতে সাপটি সম্পর্কিত বেশ কিছু তথ্য দেন। আরিফের মতো মানুষদের জন্য আজ সাপগুলো বেঁচে যাচ্ছে। এছাড়াও তিনি এও বলেন কোথাও সাপ দেখা গেলে কিভাবে যোগাযোগ করতে হবে। মুহুর্তের মধ্যেই ভাইরাল হয়ে যায় এই ভিডিও।

Back to top button