অফবিট

পুজোর আগে বাড়িতেই ‘গোল্ড ফেসিয়াল’ বানিয়ে ত্বক উজ্জ্বল করুন, রইলো পদ্ধতি

ঢাকে কাঠি পড়তে অপেক্ষা আর মাত্র কিছুদিনের। মাত্র কয়েক বছর বাদেই সূচনা হবে দেবীপক্ষের। বাঙালির ঘরে ঘরে বেজে উঠবে বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্রের কন্ঠে ‘আশ্বিনের শারদ প্রাতে’। পুজো একেবারে দোরগোড়ায়। পুজোর আগে বাঙালি নিজের রং ফর্সা করছে কিছু করবেন না এমন আবার হয় নাকি! অনেকেই আছেন যারা পুজোর আগে বিউটি পার্লারে গিয়ে গাদা গাদা টাকা খরচ করে নিজের রং উজ্জল করতে চান। তবে এবারে বিউটি পার্লার নয়, বরং বাড়িতে বসেই চটজলদি নিজের রং উজ্জল করতে পারবেন গোল্ড ফেসিয়ালের মাধ্যমে।

গোল্ড ফেসিয়ালের জন্য প্রয়োজন হলুদ, দুধ, সামান্য কেশর এবং ব্যাসন। প্রসঙ্গত, কেশর বেশ কিছুটা দামী হয়ে থাকে। যদি পুজোর কয়েকদিন আগে উজ্জ্বল ত্বক এবং অসাধারণ সুন্দর ত্বক পাওয়া লক্ষ্য হয়ে থাকে তাহলে একটু খরচ করা যেতেই পারে। ত্বককে সুন্দর করতে এবং পরিষ্কার ঝকঝকে রাখতে সাহায্য করে এই উপকরণগুলি। এর পাশাপাশি গোল্ডেন ফেসিয়াল এর পাশে পাশে খাওয়া যেতে পারে গোল্ডেন টি ও। গোল্ডেন টির মধ্যে অবশ্যই রাখতে হবে হলুদ এবং কেশরের দুধ। দুধ ভালো করে গরম করে নিয়ে তার মধ্যে এক চামচ কাঁচা হলুদ বাটা এবং খুব ভালোভাবে ফুটিয়ে নিতে হবে। পুজোর আগে অবধি যদি প্রত্যেকদিন শুতে যাওয়ার আগে এই দুধ খাওয়া যায় তাহলে ত্বক আগের থেকে অনেক বেশী গ্লো করবে।

পুজোর আগে বাড়িতেই 'গোল্ড ফেসিয়াল' বানিয়ে ত্বক উজ্জ্বল করুন, রইলো পদ্ধতি

গোল্ডেন ফেসিয়ালের সঙ্গে সঙ্গে গোল্ডেন টি প্রত্যেকদিন পান করা গেলে ভিতর থেকে এবং বাইরে থেকে সুন্দর দেখাবে। পুজোর আগে আর বিউটি পার্লারে গিয়ে সময় নষ্ট করে লাভ নেই। বিউটি পার্লারের মত ঘরে বসেই প্রাকৃতিক উপাদানের সাহায্যে এমন গ্লো উপভোগ করার মধ্যে রয়েছে আলাদা মজা। বেসন ত্বকের ওপরে মরা কোষগুলোকে একেবারে দূর করে। হলুদ এন্টিসেপটিক হিসেবে ত্বকের ওপরে হওয়া কালো দাগ এব ইনফেকশন সহজেই দূর করতে পারে। কেশর গায়ের রঙ পরিষ্কার করতে সাহায্য করে খুব সহজেই।

Related Articles

Back to top button