নিউজরাজ্য

স্বস্তির খবর, কলকাতা সহ দক্ষিনবঙ্গের ৭ জেলায় তুমুল বৃষ্টির পূর্বাভাস দিল আবহাওয়া দপ্তর

গরমে এখন হাঁপিয়ে উঠেছেন সাধারণ মানুষ। মার্চ মাসের শুরু থেকেই ছিল প্রবল গরম। সূর্যের তেজ যেন দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে। বসন্তেও বেড়েই চলেছিল তাপমাত্রার পারদ। গত ১০ বছর ধরেই এই ভয়ংকর গরম এপ্রিল থেকেই পড়তে শুরু করেছিল। তবে এবছর আগের সব রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে মার্চ মাসেই সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল। আবহাওয়া দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে মার্চের শেষ দিন এপ্রিলের প্রথম দুই দিনে কোলকাতায় রেকর্ড গরম পড়েছিল।

 

আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে যে বাঁকুড়া, হুগলি, দক্ষিণ ২৪ পরগণায় চলবে তাপপ্রবাহ। তবে আশার আলো দেখতে পাচ্ছে কলকাতা, উত্তর ২৪ পরগণা, হুগলি এবং হাওড়াবাসী। আবহাওয়া দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে ২৪ ঘন্টার মধ্যে বৃষ্টি হতে পারে সঙ্গে থাকবে ঝোড়ো হাওয়া। তাই আগামী দুই তিন দিনে তাপমাত্রা কিছুটা কমবে। প্রবল গরমের হাত থেকে কিছুটা রেহাই পাবেন সাধারণ মানুষ। শনিবার শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৫.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন ২৬.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

 

আবহাওয়াবিদরা জানান এপ্রিল মাসের শুরুতেই হতে পারে কালবৈশাখী। আগামী রবিবার বজ্রবিদ্যুৎসহ ঝড় বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এই বছরের প্রথম নিম্নচাপ আসতে চলেছে বাংলায়। তবে স্বস্তির আশ্বাস এই যে এই ঝড় আমফানের মতন অত শক্তিশালী হবে না। আন্দামানে এই ঝড়ের উৎস। শুক্রবার মাঝরাত ১২টা নাগাদ বঙ্গোপসাগরের উপর তৈরি হওয়া নিম্নচাপটি এখন বেশ দুর্বল হয়ে পড়েছে। প্রথম থেকেই নিম্নচাপটি শক্তিশালী হয়নি। এটি শেষ পর্যন্ত ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নেবে কিনা তা জানা যায়নি।

 

সূত্রের খবর পোর্ট ব্লেয়ারের গত ২৪ ঘন্টায় বৃষ্টিপাত হয়েছে। এই নিম্নচাপের জন্য ঝোড়ো হাওয়া এবং সমুদ্রে ঢেউয়ের সৃষ্টি হয়েছে। রয়েছে প্রবল বৃষ্টির সম্ভবনা। ডিজিটাল আবহাওয়ার সূত্র অনুযায়ী এই নিম্নচাপের প্রভাবে বেশ কিছু রাজ্যে হালকা এবং মাঝারি বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। অসম ও অরুণাচল প্রদেশে হালকা এবং মাঝারি বৃষ্টি কেরল ও তামিলনাডুতে বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি এবং পশ্চিমবঙ্গ, ঝাড়খন্ড এবং ওড়িষার কিছু এলাকায় বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। এমনটাই জানিয়েছেন আবহাওয়া দপ্তর।

Back to top button