নিউজভাইরাল

গান গাইতে গাইতে হঠাৎ নাইটি পরে তুমুল নাচলেন রানাঘাটের রানু মন্ডল, মুহূর্তে ভাইরাল ভিডিও

রানাঘাট থেকে একেবারে মুম্বাইয়ের লাইমলাইটে। তাও আবার রাতারাতি! তবে বর্তমানে ফের গৃহবাসী। অভাব-অনটন নিত্যসঙ্গী। একের পর এক ভিডিও অসংলগ্ন কথাবার্তা, উস্কোখুস্কো চুল, সামাজিক মাধ্যমে ট্রলের অন্যতম খোরাক করে তুলেছে যাকে। সেই রানু মন্ডলের গলায় বাস স্বয়ং মা সরস্বতীর! গান গেয়েছেন জনপ্রিয় সংগীত পরিচালক হিমেশ রেশমিয়ার (Himesh Reshammiya) তত্ত্বাবধানেও। সম্প্রতি আরও একবার সামাজিক মাধ্যমের তথা সংবাদমাধ্যমের লাইম লাইটে উঠে এলেন সেই রানু মন্ডল (Ranu Mondal)। শ্রীলঙ্কান গায়িকা ইওহানি ডি সিলভার গাওয়া ‘মানিকে মাগে হিতে’ গানটি গেয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় একেবারে সাড়া ফেলে দিয়েছেন তিনি।

মানিকে মাগে হিতে এই গানটি গেয়ে সামাজিক মাধ্যমে যেমন প্রশংসা কুড়িয়েছেন ঠিক তেমনই নিন্দাও কুড়িয়েছেন তিনি। নিজের মনের আনন্দে গাওয়া সেই গানের ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট করতেই তিনি জিতে নিয়েছেন নেট নাগরিকদের মন। নেট নাগরিকদের প্রত্যেকের কাছেই আজ অত্যন্ত জনপ্রিয় নাম হল রানু মন্ডল। নিজের সুরেলা কন্ঠের দৌলতেই ভিখারিনীর জীবন থেকে বেরিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছিলেন তিনি। রানাঘাট স্টেশন থেকে বলিউডে পাড়ি তারপর মেক ওভার, রেকর্ডিং স্টুডিও সবটাই ঘোরা হয়ে গিয়েছে তার। এমনকি সংগীত জগতে পা রাখার প্রথম সময়টুকুও তাঁর ছিল একেবারে স্বপ্নের মত। ‘এক পেয়ার কা নাগমা হে’ গানটি গেয়ে রাতারাতি সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছিলেন তিনি।

তবে রাতারাতি ভাইরাল হলেও স্থায়ী হয়নি রানু মন্ডলের জনপ্রিয়তা। নিজের অসংলগ্ন কথাবার্তা তাঁকে আবার অন্ধকার জীবনে নিমজ্জিত করতে সাহায্য করেছে। তার বাজে মেজাজ এবং অতিরিক্ত বিরক্তি ভাব, অসংলগ্ন ব্যবহার তাঁর জীবনের ছন্দ পতন ঘটানোর অন্যতম কারণ হিসেবে মনে করেন নেট নাগরিকরা। বর্তমানে আবার অভাবেই দিন কাটান তিনি। তবে সেই অভাবে এখন খামতি নেই আনন্দের। কোন ইউটিউবার তাঁর সঙ্গে দেখা করতে তাঁর বাড়ি গেলে হাসিমুখেই আড্ডা গল্পে মেতে ওঠেন তিনি। তারপরেই ভাইরাল হতে দেখা যায় একের পর এক ভিডিও।

সম্প্রতি মানিকে মাগে হিতে গানের পাশাপাশি আরও একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সামাজিক মাধ্যমে। যেখানে দেখা গিয়েছে গানের সঙ্গে সঙ্গে হলুদ নাইটি পরে নাচও করছেন তিনি। ভিডিও অনুযায়ী, হলুদ রঙের নাইটিতে গলা ছেড়ে গান করছেন যেমন একদিকে ঠিক আরেক দিকে হাত-পা নেড়ে নিজের আপন মনে নাচও করে যাচ্ছেন তিনি। নিজের মনের আনন্দে অভিব্যক্তি ছড়িয়ে পড়ছে তার মুখ ভঙ্গিমায়, কথায় সুরে এবং ছন্দে। একই সঙ্গে চলছে হেঁসেল সামলানোর কাজ ও।

ভাইরাল হওয়া এই ভিডিওটি নজর কেড়েছে সকলের। আবারো তার সারল্য মন ছুঁয়ে গিয়েছে নেট নাগরিকদের। প্রথম থেকেই অভাব-অনটনকে আঁকড়ে ধরে বেঁচে আছেন তিনি। সেসবকে একেবারে তোয়াক্কা না করেই কীভাবে তিনি নিজে আনন্দে থাকতে জানেন, প্রচারের আলো থেকে সরে গিয়েও বিন্দুমাত্র হতাশ নন তিনি! সেই সবই নেটিজেনদের বারেবারে অবাক করে।

Related Articles

Back to top button