অফবিটনিউজ

দুই বাঘের সাথে প্রেমে আপত্তি, ভালোবাসায় অতিষ্ঠ হয়ে জঙ্গল ছাড়ল বাঘিনী

দেশের সর্বোচ্চ আদালত পরকীয়াকে বৈধতা দিয়েছে। মনুষ্যসমাজে তাই জন্য পরকীয়া এখন গ্রহণযোগ্য। কিন্তু মানুষের সমাজে তা গ্রহণযোগ্য হলেও পশুরাজ তা মানবেন কেন? ঝিলার জঙ্গলের রাজার তো মানসম্মান আছে। মহারাজের দখলে থাকা জঙ্গলে-পা রেখেছে সদ্য যুবতী বাঘিনী। তাই আর ভাবনা চিন্তা না করে বাঘিনীকে প্রেম নিবেদন করে বসলেন জঙ্গলের মহারাজা।

দুই বাঘের সাথে প্রেমে আপত্তি, ভালোবাসায় অতিষ্ঠ হয়ে জঙ্গল ছাড়ল বাঘিনী

কিন্তু প্রেমের অন্তরায় এসে দাঁড়ালেন আরেক মহারাজ। সেও যে চায় মহারানী সঙ্গ। সদ্য যুবতী এই বাহিনীকে পেতে শুরু হলো দুই মহারাজের মারামারি। নাওয়া খাওয়া ভুলে বাঘিনী পিছনে পড়ে রয়েছে বনের দুই রাজা। কিন্তু তাদের প্রেমের জ্বালায় প্রাণ ওষ্ঠাগত বাঘিনীর। অগত্যা দুই মহারাজের জ্বালাতনে জঙ্গল ছেড়ে তাকে পালিয়ে আসতে হল লোকালয়ের কলাবাগানে । কিন্তু বনকর্মীরা ঘুমপাড়ানি গুলি দিয়ে ঘুম পাড়িয়ে বাহিনীকে ফের জঙ্গলে নিয়ে গেছেন। আপাতত এই বাঘিনীকে রাখা হয়েছে ঝিলা চার কম্পার্টমেন্টের একটি স্থানে । চিকিৎসকদের অনুমতি পেলেই তাকে ফের জঙ্গলে ফিরিয়ে নিয়ে আসা হবে।

দুই বাঘের সাথে প্রেমে আপত্তি, ভালোবাসায় অতিষ্ঠ হয়ে জঙ্গল ছাড়ল বাঘিনী

তবে বাঘিনী লোকালয়ে চলে আসার জন্য দুই বাঘ ঝিলা থেকে আড়বেশি জঙ্গল পর্যন্ত প্রায় ৭ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে একে অপরকে লক্ষ্য করে হুমকার ছেড়ে গেছে। একটি বাঘ বাঘিনীর গন্ধ শুঁকে তার খাঁচা অব্দি চলে এসেছে লঞ্চের কাছে। বনকর্মীদের তৎপরতায় আবার পালিয়ে যায়।

দুই বাঘের সাথে প্রেমে আপত্তি, ভালোবাসায় অতিষ্ঠ হয়ে জঙ্গল ছাড়ল বাঘিনী

এক বনকর্মী বলেন, “সাধারণত একটি বাঘ চার থেকে পাঁচ বছর বয়সেই যুবতী হয়ে ওঠে । আর এই সময়ে যেকোন পুরুষ বাঘ সঙ্গী হিসেবে পেতে চাই সেই বাঘিনীকে। শনিবার রাতেও সেই ঘটনা ঘটেছিল। দুটি বাঘের জ্বালাতনে অতিষ্ট হয়ে লোকালয়ে ঢুকে পড়ে বাঘিনী। ঘুমপাড়ানি গুলির সাহায্যে তাকে উদ্ধার করে খাঁচা বন্দি করা হয়। আপাতত বাগিনি টি সুস্থ আছে। ” তবে আপাতত এই তিন বাঘ বাঘিনীর প্রেম লীলায় কার্যত রাতের ঘুম উড়ে গেছে এলাকার মানুষের।

Related Articles

Back to top button