লাইফ স্টাইল

পৌষ পার্বণে বাড়িতে বানিয়ে ফেলুন দুর্দান্ত স্বাদের মুগ পুলি পিঠে, শিখে নিন রেসিপি

পৌষ পার্বণে প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই বিভিন্ন রকম পিঠেপুলি তৈরী করা হয়। পিঠে সাধারণত দুই প্রকারের হয়- সেদ্ধ পিঠে ও ভাজা পিঠে। ভাজা পিঠের মধ্যে অন্যতম মুগপুলি পিঠে। আজ আপনাদের শেখাবো অনন্য স্বাদের এই পিঠের রেসিপি।

•উপকরণ:
১-মুগ ডাল (হাফ কাপ)
২-নারকেল কোরা
৩- দুধ (৫ হাতা)
৪- খেজুর গুড়
৫-গুঁড়ো দুধ (৩ বড়ো চামচ)
৬-চিনি (স্বাদ অনুযায়ী)
৭-ঘি (এক চা-চামচ)
৮- নুন (হাফ চা-চামচ)
৯- চালের গুঁড়ো (এক কাপ)
১০- তেল (পরিমাণ অনুযায়ী)

•পুর বানানোর প্রণালী:
১) কড়াইয়ে প্রথমে ঘি দিয়ে গরম করে তার মধ্যে দুধ ও চিনি দিয়ে ভালো করে নাড়তে হবে।
২) তরল দুধের মধ্যে এরপর মিশিয়ে দিতে হবে গুঁড়ো দুধ।
৩) একে একে দিতে হবে নারকেল কোরা ও খেজুর গুড়ের ছোট ছোট টুকরো।
৪)সবকিছু একসাথে ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে আঁট না হওয়া পর্যন্ত।
৫) মিশ্রণটি আঁট হয়ে এলে সেটিকে ঠান্ডা হওয়ার জন্য রেখে দিতে হবে।

•রান্না করার পদ্ধতি:
১) প্রথমে কাঠখোলা অর্থাৎ শুকনো কড়াই বা ফ্রাইং প্যানে মুগডাল দিয়ে ভালো করে নেড়েচেড়ে ভেজে নিতে হবে।
২) ভেজে নেওয়া ডাল এবারে ভাল করে সেদ্ধ করতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে সেদ্ধ করার সময় যেন জলের পরিমাণ খুব বেশি না থাকে।
৩) ডাল সেদ্ধ হ‌য়ে গেলে ভালো করে ডালগুলিকে পেষাই করার যন্ত্র দিয়ে একদম মিহি করে পিষে নিতে হবে। আপনি চাইলে শিলপাটাতে বেটেও নিতে পারেন।
৪) পেষানো ডাল খানিকটা ঠান্ডা হয়ে এলে তার মধ্যে ভালো করে ময়দা মেশাতে হবে।
৫) ভালো করে ঠেসে ঠেসে ময়দা ও ডাল মেখে ডো বানিয়ে নিতে হবে।
৬)এরপরে সেই ডো ছোট ছোট অংশে পুলি বানানোর জন্য আলাদা করে নিতে হবে।
৭) প্রত্যেকটি ছোট ছোট অংশকে হাতে করে চ্যাপ্টা করে নিয়ে ছোট বাটির আকার দিতে হবে।
৮) প্রতিটি পুলির মধ্যে এরপর আগে থেকে প্রস্তুত করে রাখা পুর অল্প অল্প করে ভরতে হবে।
৯) পুর ভরা হয়ে গেলে পুলিগুলির মুখ চেপে চেপে ভালো করে বন্ধ করতে হবে। হাতে করে খানিক চেপে দিলে তা আরো ভালো হবে।
১০) পুলিগুলির দুই প্রান্ত খানিক সরু রেখে অর্ধচন্দ্রাকার বা পটল আকৃতির করতে হবে।
১১) এরপরে ছাঁকা তেলে পুলি দিয়ে হালকা বাদামি রং না আসা অব্দি ভালো করে ভাজতে হবে।
১২) এইসব করার আগেই প্রস্তুত করে রাখতে হবে চিনির রস। জলের মধ্যে অনেকটা পরিমাণ চিনি দিয়ে ভালো করে জ্বাল দিয়ে তৈরী করতে হবে চিনির আঠালো রস বা সিরা।
১৩) পুলিগুলি ভালো করে ভাজা হয়ে গেলে চিনির রসে দিয়ে অন্তত এক ঘণ্টা রেখে দিতে হবে।

প্রত্যেকটি পুলির মধ্যে ভালো করে রস ঢুকে গেলেই পরিবেশন করতে পারবেন মুগপুলি পিঠে। শীতের মরশুমে এই ভাজা পিঠের জুড়ি মেলা ভার। তাহলে আর দেরী না করে আজই বানিয়ে ফেলুন মুগপুলি পিঠে।

Related Articles

Back to top button