লাইফ স্টাইল

দুর্গাপুজোর সময় ঘরে আনুন এই শুভ জিনিসগুলি, দূর হবে অর্থনৈতিক সংকট

দেবী শক্তির আরাধনায় মাতোয়ারা গোটা দেশ। একদিকে চলছে দুর্গাপুজো বাংলা জুড়ে পঞ্চমী, ষষ্ঠী, সপ্তমী, অষ্টমী, নবমী, দশমীর কাউন্টডাউন তখনও গুজরাটের নবরাত্রি গরবা নাচের তালে তালে চলছে মায়ের আরাধনা। কোথাও বা উমার পুজো আবার কোথাও বা চন্দ্রঘণ্টা আরাধনা চলছে সেখানে। এই পরিস্থিতিতে আর্থিক অভাব অনটন দূর করার জন্য জ্যোতিষ মতে কিছু ঘরোয়া টিপস রয়েছে যা এক নজরে দেখে নেওয়া যাক।

১. ব্যবসায় উন্নতি:
লকডাউন পরিস্থিতিতে ব্যাবসায়িক দিক থেকে বহু সময়ই প্রত্যেকটি ব্যবসায়ীকে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। অর্থনৈতিক অনটনের জন্য এবং করোনা পরিস্থিতির ধাক্কায় কার্যত অনেক ক্ষেত্রেই ব্যবসায়ীক দিকে মন্দা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এহেন পরিস্থিতিতে জ্যোতিষ মতে বলা হয়েছে, ব্যাবসায়িক যে অফিস রয়েছে বা দোকান রয়েছে সেখানে দুর্গাপূজার সময় লক্ষ্মী দেবীর ছবি নিয়ে এসে তার পুজো করলে মিলতে পারে কাঙ্ক্ষিত সাফল্য।

২. অর্থ কষ্ট থেকে বাঁচার উপায়:
আর্থিক দূর্ভোগে জীবনের অনেকাংশেই খুব প্রভাব ফেলেছে অনেকেরই। আর তা থেকে বাঁচতে ঘরে রুপোর গণেশ মূর্তি নিয়ে আসা আবশ্যক কিংবা রুপোর কয়েনেও যদি গণেশ মূর্তি থাকে তাহলেও তা ঘরের পক্ষে দিতে পারে শুভ ফল। এই গণেশ মূর্তি কাটাবে বিভিন্ন আর্থিক সম্পর্কিত সমস্যা। সাহায্য করবে সমস্যার সমাধানের পদক্ষেপ নিতে। এতে আছে সুখ এবং সমৃদ্ধি।

৩. পদ্মফুল:
দুর্গাপূজার সময় যদি ঠাকুরকে পদ্মফুল দেওয়া যায় তাহলে খুবই ভালো। পদ্মফুল অর্পনের মা খুশি হন বহু জ্যোতিষবিদ মনে করেন। ফলে দুর্গাপূজার সময় দেবীকে তুষ্ট করতে এবং ঘরে অভাব অনটন দূর করতে পদ্ম অর্পণের কথা বলা হয়েছে জ্যোতিষমতে। এছাড়াও এই কাজে চাকরিপ্রার্থীরাও পেতে পারেন ইতিবাচক ফল। জলপদ্ম সহজে না পেলেও স্থলপদ্ম সহজেই পাওয়া যায়। এই পদ্ম ফুল দিয়ে মাকে সজ্জিত করলেই কেটে যেতে পারে আর্থিক দুর্ভোগ।

৪: সংসারে অশান্তি কাটানোর উপায়:
জোর কদমে চলছে দেবী আরাধনা ঠিক তেমনি ভিন রাজ্যে চলছে মায়ের পুজো। নবাবদের উপলক্ষে উত্তর ভারত সহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় প্রত্যেক দর্শনার্থীর উত্তেজনা তুঙ্গে। ফলে ধুমধাম সহকারে বিভিন্ন জায়গায় চলছে দেবী মা দুর্গার আরাধনা। এমন সময়ে মাকে আলতা সিঁদুর দিয়ে পূজো দিলে পাওয়া যেতে পারে সুফল। জ্যোতিষ শাস্ত্র মতে এই দুর্গাপূজার সময় ঘরে ষষ্ঠীর দিন মা দুর্গার মূর্তি নিয়ে এলেও মিলতে পারে ভালো ফল। এই সময় মা দুর্গা ঠাকুরের কাছে প্রদীপ জ্বালানো জ্যোতিষ বিদ্যা মতে খুবই ভালো।

Related Articles

Back to top button