বিনোদন

মিঠাইকে বউ হিসেবে মেনে নিলেন সিদ্ধার্থ, প্রথমবার মিঠাইয়ের প্রতি ভালোবাসার কথা জানালেন উচ্ছেবাবু

অবশেষে তুফানমেলকে একেবারে মন থেকে মেনে নিয়েছে উচ্ছেবাবু। নিজের যোগ্য স্ত্রীয়ের সম্মান দিয়ে সিঁথি রাঙিয়েছে তুফানমেলের। এরপরেও বিয়েতে অবিশ্বাসী উচ্ছেবাবুর এই সিদ্ধান্ত কিছুতেই যেন বিশ্বাস করে উঠতে পারছে না সকলের প্রিয় মিঠাই। তার মনে বারে বারে এই শঙ্কা ঘুরে ফিরে আসছে, উচ্ছে বাবু আদৌ এটা ঠিক কাজ করলো!

স্বয়ং সিদ্ধার্থের থেকে বিয়ের প্রস্তাব পাওয়ার পরেই মিঠাই কেমন চুপ হয়ে গিয়েছে। এটি নজর এড়ায়নি উচ্ছেবাবুর। যদিও সে পুরো ব্যাপারটাই বুঝতে পারছে। বিয়ের পর মিঠাই আশ্রমের একটি ঘরে চলে এলে সিদ্ধার্থ একান্তে কথা বলতে আসে মিঠাইয়ের সঙ্গে। সে বারে বারে মিঠাইকে জিজ্ঞাসা করে তার মনে কিসের এত প্রশ্ন জেগেছে, যদিও সব কিছুর উত্তর মিঠাই এড়িয়ে যেতে চায়। তবুও সিদ্ধার্থের কাছে সে কিছুতেই লুকাতে পারেনা নিজের মনের আশঙ্কা।

কথায় কথায় সিদ্ধার্থের উদ্দেশ্যে মিঠাই প্রশ্ন করেই বসে, সে বিয়েটা এটা যখন মেনেই নিল তাহলে কেন সে মিঠাইকেই তার বউ হিসাবে যোগ্য সম্মান দিল! মিঠাই এর জায়গায় অন্য কেউও তো থাকতে পারতো। মিঠাই এর এই অদ্ভুত প্রশ্নের জবাব দিয়ে সিদ্ধার্থ বলে, নিজের স্ত্রীয়ের জায়গায় মিঠাই ছাড়া অন্য আর কাউকে ভাবতেই পারেনা। সে পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দিয়েছে সে মিঠাই ছাড়া অন্য কাউকেই সে তার স্ত্রী এর যোগ্য সন্মান দিতে পারত না।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেই দর্শকেরা মিঠাইয়ের প্রজাপতয়ে নমঃ বিশেষ এপিসোডে দেখেছেন মিঠাই ও সিদ্ধার্থের চার হাত এক হওয়ার গল্প। মিঠাই বাড়ি ছেড়ে চলে যাওয়ার পর দাদু চলে এসেছিল গুরুদেবের আশ্রমে। দাদুকে ফেরাতে সিদ্ধার্থ মিঠাইকে নিয়ে হাজির হয়। সকলের সামনে মিঠাইকে ফিল্মি কায়দায় হাঁটু গেড়ে বসে বিয়ের প্রস্তাব দেওয়ার মতো অবিশ্বাস্য ঘটনা দেখানো হয়েছিল সেই এপিসোডে। তারপরেই মিঠাই ও সিদ্ধার্থের বিয়ের আয়োজন করা হয় আশ্রমেই। মিঠাই ও সিদ্ধার্থের বিয়েতে সাক্ষী থেকেছে গোটা মোদক পরিবার এবং দর্শক মহল। বিয়ের আসরে ব্যাগড়া দিতে উপস্থিত হয়েছিল টেস, সোম এবং সিদ্ধার্থের বাবা সমরেশ। তবুও কোন কাজই হয়নি।

পরবর্তীকালে সিদ্ধার্থ-মিঠাইয়ের তিল তিল করে সাজানো সংসারকে ভাঙতে কে আসবে তা তো নিশ্চিত! তোর্সা অর্থাৎ সকলের দুচোখের বিষ টেস বুড়ি নতুন ফন্দিও আঁটবে- তবে উচ্ছেবাবু এবং তুফানমেল ঠিক কীভাবে সব বাধা অতিক্রম করে নিজেদের ভালোবাসা টিকিয়ে রাখবে! কীভাবেই বা বিশ্বাসের কাঁধ একে অপরের সঙ্গে শক্তভাবে অটুট থাকবে! সবটাই এখন দেখার।

Related Articles

Back to top button