বিনোদন

বড়পর্দায় আসছে ‘সিঙ্গেল মাদার’ ঋতুপর্ণা, নুসরতের ছেলের পিতৃপরিচয় নিয়ে বিস্ফোরক অভিনেত্রী

অভিনেত্রী পাপিয়া অধিকারী (Papiya Adhikari) কথা কারোরই অজানা নয়। এবার তাঁকে দেখা যাবে নতুন ভূমিকায়। অভিনেতার তকমা ছেড়ে নিজের মাথার মুকুটের পালক এবার জুড়লেন পরিচালকের তকমা। অভিনেত্রী পাপিয়া অধিকারী পরিচালিত নতুন ছবির নাম ‘মাদার ইন্ডিয়া’। যে ছবিতে মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যাবে অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকে (Rituparna Sengupta)। পতিতালয়ের প্রেক্ষাপটে একজন মায়ের গল্প বলবে এই সিনেমা। এই গল্প কাহিনী বড় পর্দায় যেমন উঠে আসতে চলেছে সিঙ্গেল মাদারের গল্পটি ঠিক তেমনি অন্যদিকে উঠে আসবে জীবনে প্রশ্নের মুখে সিঙ্গেল মাদার অভিনেত্রী তথা সাংসদ নুসরাত জাহানের কথা।

বড়পর্দায় আসছে 'সিঙ্গেল মাদার' ঋতুপর্ণা, নুসরতের ছেলের পিতৃপরিচয় নিয়ে বিস্ফোরক অভিনেত্রী
ছবি: ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত

ইদানিং সিঙ্গেল মাদারের বেশ দারুন চল বেড়েছে। একবিংশ শতাব্দীর বুকে দাঁড়িয়ে একজন মহিলাকে মা হয়ে উঠতে গেলে সবার আগে জানতে চাওয়া হয় তাঁর সন্তানের পিতৃপরিচয় কি হবে! একজন সন্তান বেড়ে ওঠার পক্ষে শুধু কি মায়ের পরিচয়ই যথেষ্ট নয়? এমন প্রশ্ন তুলতে দেখা গেছে সংসদ তথা অভিনেত্রী নুসরাত জাহানকে। তিনি মনেপ্রাণে চান তার সন্তান তাঁর পরিচয় বেড়ে উঠুক। অন্যদিকে নেটিজেনরা নুসরাতের সন্তানের পিতৃপরিচয় জানতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। সোশ্যাল মিডিয়ার অভিনেত্রীকে কেন্দ্র করে দেখা যাচ্ছে লাগাতার মন্তব্য। তবে বাস্তবে সিঙ্গেল মাদার নুসরাত জাহানের সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেন অভিনেত্রী তথা পরিচালক পাপিয়া অধিকারী!

বড়পর্দায় আসছে 'সিঙ্গেল মাদার' ঋতুপর্ণা, নুসরতের ছেলের পিতৃপরিচয় নিয়ে বিস্ফোরক অভিনেত্রী
ছবি: পাপিয়া অধিকারী

এ প্রসঙ্গে অভিনেত্রী কথা বলতে গিয়ে উল্লেখ করেছেন,’একজন মা সবসময়েই একা তাঁর সন্তানকে বড় করতে পারেন। কিন্তু সেক্ষেত্রেও কিছু শর্ত থাকে। নুসরত হয়তো নিজেকে ওতো গুরুত্ব দেন না কিন্তু ওঁ এই সমাজের একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব। একজন মহিলা হিসাবে আমি বলতে পারি, আমরা উপনিষদের, গীতার, কোরানের, বাইবেলের দেশের লোক, আমাদের কিছু আদর্শ আছে। সেখানে একজন সাংসদ হয়ে নুসরত যদি বলেন আমার সন্তানের পিতৃপরিচয় নেই, আমার বিয়েটা বিয়ে নয়, সেটা সমাজে বড় প্রভাব ফেলতে পারে। সামাজিকভাবে সেটা মেনে নেওয়া যায়না। এটাকে মিথ্যাচার বলে। সমাজের মাথা হয়ে বসে এই কথা বলতে পারেন না তিনি।’

এখানেই শেষ নয় এই প্রসঙ্গে অভিনেত্রীর আরও বক্তব্য, ‘একা ছেলে মানুষ করার ক্ষেত্রে আমি সবসময় ওঁকে সাপোর্ট করি কিন্তু সাংসদ হয়ে এই কাজ করতে পারেন না তিনি। কাউকে বিয়ে করতে চাইলে সে করতেই পারে, অন্য কাউকে ভালোবাসতেই পারে। কিন্তু সন্তানের পিতৃপরিচয় নিয়ে এই ধোঁয়াশা তৈরি করা মেনে নেওয়া যায় না। আগামী দিনে তাঁর ছেলেকেও সমাজের নানা ক্ষেত্রে প্রশ্নের মুখে পড়তে হতে পারে। বাবা জানে বাবাকে, এটা নুসরতের জেদের কথা। সাংসদ হয়ে এই জেদ তাঁকে মানায় না। এই বিষয়ের সমাধান নুসরতকেই বার করতে হবে। এটা কোনও জ্ঞান নয়, সিনিয়র হিসাবে ওঁকে একাটা সাজেশন মাত্র।’

বড়পর্দায় আসছে 'সিঙ্গেল মাদার' ঋতুপর্ণা, নুসরতের ছেলের পিতৃপরিচয় নিয়ে বিস্ফোরক অভিনেত্রী
ছবি: নুসরত জাহান

অপরদিকে ছবির বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে পরিচালক তথা অভিনেত্রী পাপিয়া অধিকারী বলেছেন, ‘লকডাউনে বাড়িতে বসে বেশ কয়েকটা বিষয় নিয়েই চিত্রনাট্য লিখেছি, এটা তারমধ্যেই একটা। একটি মেয়ের গল্প যে পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতির কারণেই পতিতালয়ে এসে পড়ে, সেখান থেকে তাঁর মাতৃত্ব, তাঁর উত্তরনের কাহিনিই উঠে আসবে এই ছবিতে। দুর্বারের সঙ্গে কাজ করতে করতেই তাঁদের জীবন সম্পর্কে কিছুটা জানি। তাঁরা সব বকুল ফুলের মতো স্নিগ্ধ। যাঁর বাড়ির মাটি ছাড়া দুর্গা পুজো হয় না সেখানে তাদের পতিতা কেন বলা হবে,তাই ঠিক করি এবার তাদের উত্তরণের গল্প বলব। ছবিতে ঋতুপর্ণাকে ছাড়া আর কাউকে মানাতো না। দীর্ধ ৩০ বছর ঋতুকে চিনি। এই ইন্ডাস্ট্রিতে নায়িকা হিসাবে টিকে থাকার জন্য দীর্ঘদিন লড়াই করে চলেছে সে। বন্ধু হিসাবে কাছ থেকে দেখেছি সেই লড়াই। এখানেও একজন মায়ের লড়াইয়ের গল্প বলা হয়েছে।’

তবে ইতিমধ্যে এই ছবির নানারকম পরিকল্পনা করা হলেও ছবির সমস্ত কাস্টিং এখনো অবধি ঠিক করা হয়নি। শুধুমাত্র মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যাবে ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকে এইটুকুনি সিদ্ধান্ত নিয়েছেন পরিচালক। তবে আগামী কয়েক মাসের মধ্যেই সব সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত ভাবে নিয়ে শুরু হয়ে যাবে মাদার ইন্ডিয়া ছবির শুটিং।

Related Articles

Back to top button