বিনোদন

Mithai: ভালো নেই ‘মিঠাই’, অসুস্থ শরীর নিয়েই শুটিং চালিয়ে যাচ্ছেন সৌমিতৃষা

গুরুতর অসুস্থ জনপ্রিয় মিঠাই (Mithai)। জি বাংলায় (Zee Bangla) এই ধারাবাহিকটি জনপ্রিয়তা পাওয়ার পর থেকেই একেবারে দর্শকদের নিজের ঘরের মেয়ে উঠেছেন মিঠাই অর্থাৎ অভিনেত্রী সৌমিতৃষা কুন্ডু (Soumitrisha Kundoo)। সেইসব দর্শকের জন্য রয়েছে একটি উদ্বেগজনক সংবাদ। শুক্রবার বিকালে শুটিং সেটেই তিনি শারীরিক অসুস্থতা বোধ করতে শুরু করেন। শুটিং সেট থেকে তাড়াতাড়ি শুটিং শেষ করে বাড়ি ফিরতেই জ্বরে কাবু হয়ে যান তিনি। কিন্তু দর্শকদের এতো ভালোবাসা পেয়ে মিঠাই শুটিং থেকে বিরতি নিতে নারাজ।

মিঠাই ধারাবাহিকে এই মুহূর্তে চলছে টান টান পর্ব। আর সেই জন্যই এখন চলছে গুরুত্বপূর্ণ শুটিংয়ের কাজ। এক সংবাদমাধ্যমকে অভিনেত্রী জানিয়েছেন,”গত কয়েকদিন ধরেই আমাদের আউটডোর শ্যুটিং চলছে। মাঝে মধ্যে মাথায় টিপ টিপ বৃষ্টির জল পড়েছে। সেই ভেজা চুলেই ছিলাম। আর আমার অত্যন্ত ঠাণ্ডা লাগার ধাত ছোটবেলা থেকেই। সেই সঙ্গে কারাগারের প্রোমোর যেখানে শ্যুট হয়েছে, সেই জায়গাটা অত্যন্ত গরম। খুব ঘেমে গিয়েও শটের মাঝখানে কুলারের সামনে সরাসরি বসতাম। এই ছোটবেলা থেকেই। সেই সঙ্গে কারাগারের প্রোমোর যেখানে শ্যুট হয়েছে, সেই জায়গাটা অত্যন্ত গরম। খুব ঘেমে গিয়েও শটের মাঝখানে কুলারের সামনে সরাসরি বসতাম। এই সবে ঠাণ্ডা -গরমে শরীরটা খুব খারাপ হয়েছে।”

অভিনেত্রীর যে বৃষ্টিতে ভেজার সখ রয়েছে তা অভিনেত্রীর ফ্যানেরা সকলেই জানেন। সেই ভাললাগা থেকেই কি বৃষ্টিতে ভেজা হয়েছিল অভিনেত্রীর! এই প্রশ্নের জবাবে অভিনেত্রী জানিয়েছেন,”না না এটা কিন্তু আমি ইচ্ছে করে ভিজিনি। শ্যুট ছাড়া গত কয়েকদিনে একটুও হাত লাগায়নি আমি বৃষ্টিতে। হঠাৎই ঠাণ্ডা লেগে গেছে। আসলে যখন ফ্লোরে বা মেকআপ রুমে থাকি, তখন সবার মাঝে ফ্যান, এসি তো বন্ধ করা যায় না। এইভাবে ঠাণ্ডা লাগাটা আরও জোরালো হয়েছে।”

আপাতত ওষুধ খাওয়ার পর শনিবার দুপুরের পর থেকে জ্বর আসেনি অভিনেত্রীর। আজ রবিবার ডাক্তারের কাছে যাওয়ার কথা রয়েছে তার। এইজন্যই নিজের কল টাইম নিয়েছেন একটু দেরীতেই। তবে সদ গন্ধ সবই পাচ্ছেন তিনি। এমনকি কোভিডের কোনরকম উপসর্গ নেই তার। তবুও চিকিৎসকের কাছ থেকে পরামর্শ নিতে চান তিনি। দীর্ঘ ২৩ সপ্তাহ ধরে জি বাংলার মিঠাই ধারাবাহিকটি টিআরপি (TRP) লিস্টে প্রথম স্থান অধিকার করেছে। এতদিন ধরে দর্শকের এতো ভালোবাসা পেয়ে অভিনেত্রীর কেমন লাগছে!

এই প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে অভিনেত্রী জানিয়েছেন,”খুবই ভাল লাগছে। সমস্ত অভিনেতা থেকে শুরু করে কলাকুশলী, সকলের যৌথ পরিশ্রমের ফল এটা। পরিশ্রমের যে দামটা পাচ্ছি, দর্শকদের এত ভালোবাসা পাচ্ছি, সেই অনুভূতিটা বলে বোঝাতে পারবো না। টিআরপি -তে স্থান পরিবর্তন হতেই পারে কিন্তু আশা করবো এই ভালোবাসাটা যেন সকলের থেকে সব সময় পাই।” ধারাবাহিকে এই প্রথমবার সিদ্ধার্থকে রাখি পড়ানোর সুযোগ পেয়েছে তার বোনেরা। সেরা উপহার হিসাবে সিদ্ধার্থের কাছ থেকে এসেছে সে যেন মিঠাইকে তার স্ত্রী হিসাবে মেনে নেয়। তবে এরই মধ্যে এসেছে সিদ্ধার্থের কাছে অফিশিয়াল প্রোজেক্টের জন্য বিদেশ যাওয়ার অফার। এই সুযোগেই সিদ্ধার্থের দাদা এবং সিদ্ধার্থের বিশেষ বন্ধু পরিকল্পনা করে মিঠাই কে অপরাধী প্রমাণ করে জেলে পাঠাবে। কিভাবে রক্ষা পাবে মিঠাই? গোপাল কি তাকে হেলেপ করবে? এইসব প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে একমাত্র আগামী পর্বেই।

Related Articles

Back to top button