বিনোদন

‘গরীবের নেহা কাক্কর’, নতুন প্রোমো প্রকাশ্যে আসতেই নেটিজেনদের ট্রোলের শিকার ‘ফুলঝুড়ি’ মানালি দে

স্টার জলসার নতুন ধারাবাহিক ‘ধুলোকণা’-র মাধ্যমে দীর্ঘ সময় পরে ছোটপর্দায় ফিরেছেন অভিনেত্রী মানালি দে (Manali Dey), তাঁর বিপরীতে আছেন সুপরিচিত অভিনেতা ইন্দ্রাশিস, এই দুইজন ছাড়াও ধারাবাহিকে রয়েছেন আরও বেশকিছু তাবড় কুশলী।

তবে প্রত্যাশার সঙ্গে পাল্লা দিতে পারেনি এই ধারাবাহিক। প্রতিদ্বন্দ্বী চ্যানেলে এক‌ই সময়ে সম্প্রচারিত হয় ‘মিঠাই’, সেই ধারাবাহিক এখন ছোটপর্দায় এক নম্বর স্থানে রয়েছে। তার সঙ্গে প্রতিযোগিতায় ‘ধুলোকণা’ কেন, কোনো ধারাবাহিক‌ই টক্কর দিতে পারছে না।

টিআরপি তালিকায় স্থান না পেলেও দর্শকমহলে কিছুটা হলেও জায়গা তৈরী করতে পেরেছে ‘ধুলোকণা। বস্তির দুই ছেলে-মেয়ে লালন ও ফুলঝুরির জীবনের গল্প‌কে কেন্দ্র করেই এই ধারাবাহিক গড়ে উঠেছে। লালন চায় বড় গায়ক হতে, সে নিজে গান বাঁধে, গান গায়। উপার্জনের জন্য যে বাড়িতে লালন ড্রাইভারের কাজ করে সেই বাড়িতে পরিচারিকা হিসেবে যুক্ত হয় ফুলঝুরি। ঝগড়ার মাধ্যমে সম্পর্কের সূত্রপাত হয়ে ধীরে ধীরে প্রেমের দিকে এগোয় তাদের সম্পর্ক। এমন কী বিয়ের আসর‌ও বসে তাদের ঘিরে, কিন্তু সেই বিয়ে হয়নি। চড়ুই নামক এক চরিত্র মিথ্যে বদনাম দিয়ে লালনকে পুলিশের হাতে তুলে দেবে এই আশঙ্কায় ফুলঝুরি বিয়ে করতে রাজি হয়নি। এরপরে ভুল বোঝাবুঝি, মান-অভিমানের কারণে ভেঙে যায় তাদের সম্পর্ক। অভিমান, রাগ ও জেদের ওপর ভর করে চড়ুইকে বিয়ে করার জন্য রাজি হয়ে যায় ফুলঝুরি। এরপর থেকেই শুরু হয় লালন ও ফুলঝুরির মধ্যে টানাপোড়েন ও রেষারেষি।

এরপরই আসে চিত্রনাট্যে চমক। ফুলঝুরি দারুণ গান লেখে একথা আগে জানা গেলেও সে যে গান‌ও গাইতে পারে তা জানা ছিলোনা কারোর‌ই। নিজের বড় মামি আর ছোট মামুর সাহায্য নিয়ে নিজের গানের প্রতিভার বিকাশ ঘটাচ্ছে ফুলঝুরি। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে ফুলঝুরির মঞ্চে গান গাওয়ার একটি ভিডিও, আর সেটি নিয়েই শুরু হয়েছে ট্রোলিং ও সমালোচনা। নেটিজেনদের একজন কমেন্ট করেছেন,”জবার বংশধর”, আরেকজন বিদ্রূপ করে বলেছেন,”গরীবের নেহা কক্কর”। দর্শকমহলে বেশিরভাগই এই ঘটনায় অবাক হয়েছেন, তাঁরা বলেছেন,”জীবনে গান শিখলো না ফুলঝুরি আর দু-দিন আগে হঠাৎ ওর মনে হল ও গান পারে, আর সেখান থেকে সোজা স্টেজ শো!”

Related Articles

Back to top button