বিনোদনভাইরাল

ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা গুনগুনের, বিপদের মুখে গোটা ‘খড়কুটো’ পরিবার

তবে কি সত্যিই সত্যিই আত্মহত্যা করার চেষ্টা করলেন তৃণা! কিন্তু কেনো? হঠাৎ কি কারণে তিনি এই পথ বেছে নিতে বাধ্য হলেন? আসুন আসল ঘটনাটি ঠিক কী ঘটেছিল তা জেনে নেওয়া যাক।

 

প্রসঙ্গত, স্টার জলসা পরিচালিত খড়কুটো ধারাবাহিকে গুণগুনের চরিত্রে অভিনয় করছেন তৃণা সাহা। এই ধারাবাহিকের একটি দৃশ্য সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। ভাইরাল ভিডিওতে দেখা গেল, গুনগুন জ‍্যাঠাইয়ের ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যার করার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু কেনো তিনি হঠাৎ এরকম করলেন! কেনো গুনগুন হঠাৎ জ‍্যাঠাইয়ের ঘুমের ওষুধের শিশিতে থাকা ওষুধ খেয়ে পুরো অচৈতন‍্য অবস্থায় পড়ে রয়েছেন একটি বেঞ্চ এ! এক কথায় বলতে গেলে এত টুইস্ট দেখে দর্শক দের মনে হাজার প্রশ্নের সৃষ্টি করেছে। আসুন আমরা জেনেনি যে, ঠিক কি ঘটেছিল বা আসল সত্যিটা কি?

 

প্রসঙ্গত, আমরা এই ধারাবাহিকের আরেক চরিত্র দেবলীনা কে ও দেখা যায় কিছুদিন আগে আত্মহত‍্যার করার চেষ্টা করতে। জানা যায় যে, তিনি এমন কাণ্ড ঘটিয়েছেন সুকল‍্যাণের বিয়ে কে কেন্দ্র করেই। আর তার কিছু দিনের মধ্যেই দেখা গেলো যে, সিরিয়ালের অন্যতম প্রধান চরিত্র গুণগুণ ও জ‍্যাঠাইয়ের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করলেন তিনি।ধারাবাহিকে সূত্রে জানা যায় যে, গুনগুনের এই কাজটি করার পিছনে রয়েছে জ‍্যাঠাইয়ের বকা। গুনগুন যখন জানতে পারে যে, জ‍্যাঠাই তার নিজের মেয়েকে ত‍্যাজ‍্যকন‍্যা করেছেন। আর তখন গুণগুন পুটুপিসির বারন না শুনেই সেই কথা সরাসরি জিজ্ঞাসা করে ফেলেন জ‍্যাঠাইকে। আর তার ফলেই জ‍্যাঠাই প্রচণ্ড রেগে যান এবং খুব জোরে ধমক দেন গুনগুনকে। দর্শকরা মনে করছেন, এই অভিমানের কারণেই হয়তো এই ভয়ঙ্কর পদক্ষেপ নিয়েছেন গুনগুন। যা দেখে রীতিমত হতবাক হয়ে গিয়েছেন দর্শকরা এবং যা সকল কে এক কথায় প্রায় অবাক করে দিয়েছে বললেই চলে।

 

 

View this post on Instagram

 

Shared post on

 

তবে সোশ্যাল মিডিয়ায় এই বিষয় গুলি নিয়ে অনেক টাই শোরগোল পরে গেছে । নেট দুনিয়ার সকলেই বলছেন যে, এক ধারাবাহিকে পর পর দুবার এই ধরণের স্পর্শকাতর বিষয় দেখানো টা ঠিক নয়। তা মানুষের মনে খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে। যদিও জানা যায় যে, নেটিজেনরা এই ব্যাপারটির তীব্র সমালোচনা করেছেন । আর তাই খড়কুটো’র পুরো টিম ও নির্মাতাদের তীব্র সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। সত্যি বলতে গেলে বর্তমানে যুগে টেলিভিশনের জগতে আমরা যা দেখি তার অনেকটাই প্রভাব পড়ে আমাদের সকলকের জীবনেও। আর সত্যি বলতে এই ধরণের স্পর্শকাতর বিষয় গুলি প্রতিনিয়ত খুবই খারাপ প্রভাব ফেলছে সমাজের উপর। আর তাই এই বিষয় টি টেলিভিশনের পর্দায় পর পর দুবার দেখানোর পর , নেট দুনিয়ায় বিষয়কে কেন্দ্র করে এক প্রকার তীব্র সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

 

Related Articles

Back to top button