বিনোদন

ভেঙে গেল ‘খড়কুটো’ পরিবার, পাকাপাকিভাবে শ্বশুরবাড়ি ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিলেন গুনগুন

বেশ কয়েকদিন ধরেই খড়কুটো (Khorkuto) পরিবারে অশান্তি আর শেষ নেই। মিষ্টি বৌদির বাচ্চা হওয়ার পর থেকেই লেগেছে অশান্তি। যখন মিষ্টি বৌদি প্রসব যন্ত্রণা ওঠে সেই সময়ে বাড়িতে কেউ ছিল না। ওই সময় শুধুমাত্র গুনগুন তার পাশে ছিল এবং বাচ্চাটাকে পৃথিবীতে নিয়ে আসতে সাহায্য করেছে ওই। এর জন্যই পুচু সোনার ওপর গুনগুনের অধিকারবোধ জন্মেছে। এর জেরেই সৃষ্টি হয়েছে অশান্তির।

নতুন প্রোমো সামনে এলে তাতে দেখা যাচ্ছে গুনগুন এবার বাবিনের বাড়ি ছাড়ার পাকাপোক্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এমনকি সে তার বাবার সঙ্গে জিনিসপত্র গুছিয়ে একদম তৈরি। শাশুড়ি মাকে জানিয়ে দিয়েছে সে আর এখানে ফিরবে না। খরকুটর গল্প বলার ধরনে দর্শকদের পক্ষ থেকে একরাশ অভিযোগ জমা হয়েছিল ধারাবাহিকের প্রতি। গুনগুনের অতিরিক্ত অধিকারবোধ দর্শকেরা মোটেই ভাল চোখে দেখছেন না। মায়ের থেকে কেউ কিভাবে নিজের সন্তানকে আলাদা করে রাখতে পারে সেই প্রশ্ন উঠেছিল বারবার। এমনকি বাস্তবে এটা কি আদৌ অসম্ভব! এই প্রশ্ন তুলেছিলেন কেউ কেউ।

গুনগুনের এই পাগলামি আপাতত সহ্য করতে পারছে না সৌজন্যও। গুনগুনের ওপর বেজায় অসন্তুষ্ট হয়েছে। বাড়ির প্রত্যেকের মতেই গুনগুন অবাধ্য। গুনগুনের বাবা আর চায়না তার আদরের মেয়ে এত অপমান সহ্য করে বাবিনের বাড়িতে থাকুক। শ্বশুরবাড়িতে একমাত্র গুনগুনকে সমর্থন করছেন তার পটকা। যাওয়ার আগে গুনগুন স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছে সে আর ফিরবে না। বাবিন এর প্রশ্ন,”আমি কি তোমাকে যেতে বলেছিলাম?” এই প্রশ্নের উত্তরে স্পষ্ট জবাব দিয়ে গুনগুন বলেছে, ‘এর আগেও বহুবার আমায় বাড়ি ছেড়ে চলে যেতে বলেছ। আর যে বলবে না সেটা কে বলতে পারে?’ তাহলে কি এবারে ভেঙে যেতে চলেছে সৌজন্য এবং গুনগুনের সম্পর্ক! এই সপ্তাহের টিআরপি লিস্টে যথেষ্ট প্রথম লক্ষ্য করা গেছে এই ধারাবাহিকের। এই দুই জোটের বিচ্ছেদের পর সেরা দশের মধ্যে আদৌ জায়গা করতে পারবে কিনা সেটাই সবচেয়ে বড় চিন্তা দর্শক মহলে।

Related Articles

Back to top button