বিনোদন

গল্পের গরু গাছে ওঠেছে, এখনকার সিরিয়াল দেখার যোগ্য নয়, বিস্ফোরক অভিনেতা বিল্পব চ্যাটার্জী

নয়ের দশকে বাংলা চলচ্চিত্র জগতের দাপুটে খলনায়ক ছিলেন বিপ্লব চ্যাটার্জী (Biplab Chatterjee)। নায়িকাকে জ্বালাতন করা হোক অথবা মারপিট সবেতেই তিনি হিট। সেই সময় তাই বাংলা ছবিতে ভিলেন বলতে একমাত্র যেন তার মুখটাই জ্বলজ্বল করতো।‌ বর্তমানে ইন্ডাস্ট্রির থেকে কিছুটা দূরে থাকলেও ইন্ডাস্ট্রি তাকে আজও সম্মান করেন। বর্ষীয়ান এই অভিনেতাই বর্তমানে বাংলা চলচ্চিত্রের গল্প ও মান বিষয়ক এমন একটি মন্তব্য করেছেন,যা শুনলে চমকে যাবেন!

অভিনেতা বিপ্লব চ্যাটার্জির কথায়,“বাড়ির ভিত নড়বড়ে হলে বাড়ি তো ধসে পড়বেই উত্তম কুমারের পরবর্তী সবাই যখন মাথায় হাত দিয়ে বসে পড়েছিল, তখন আমরাই কমার্শিয়াল ফিল্মে কাজ করে সিঙ্গেল স্কিনে হাউসফুল বোর্ড ঝুলিয়েছি। এখন এসব কোথায় হচ্ছে? এখন অভিনেতারা সব কায়দাবাজি শিখে গিয়েছে কায়দাবাজি শিখে ভালো কাজ হয় না।”

গল্পের গরু গাছে ওঠেছে, এখনকার সিরিয়াল দেখার যোগ্য নয়, বিস্ফোরক অভিনেতা বিল্পব চ্যাটার্জী

অভিনেতা সেভাবে বাংলা সিরিয়াল দেখেন না, তবে তার স্ত্রী মাঝেমধ্যে এইগুলি দেখেন বলে তার‌ও সেইগুলি চোখে পড়ে। বাংলা সিরিয়ালের মান নিম্নমুখী হয়ে গেছে বলে তিনি বলেন,“গল্পের গরু গাছে উঠেছে। এখনকার সিরিয়াল গুলোতে বলুন গল্প আছে কিছু? একটা নির্দিষ্ট গল্প আছে কিছু? খালি বাড়ানোর চিত্রনাট্য। যিনি লিখেছেন পয়সা পেয়ে যাচ্ছেন, আরামে আছেন, ভালোই ব্যবসা চলছে এভাবে কাজ হয়না।” সেই সাথে অভিনেতা আর‌ও বলেন যে, “এখন আর কেউ শিল্পী নেই, সব কুলপি হয়ে গেছে। টাকা পেয়ে যান বলেই এরা বাজে গল্পে কাজ করতে প্রতিবাদ করেন না।”

গল্পের গরু গাছে ওঠেছে, এখনকার সিরিয়াল দেখার যোগ্য নয়, বিস্ফোরক অভিনেতা বিল্পব চ্যাটার্জী

সত্যজিৎ রায়ের হাত ধরে চলচ্চিত্র জগতে প্রবেশ করেছিলেন তিনি, তার অভিনয় প্রতিভায় মুগ্ধ হয়ে যেতেন মৃণাল সেন তরুণ মজুমদার তপন সিনহার মত কিংবদন্তীরা! আর আজ বর্তমান যুগের পরিচালকেরা তাকে দূরে ঠেলে রেখেছেন এই বিষয়ে তিনি বলেন,“বিশাল মাপের ডিরেক্টর ওরা! আমাকে কেন ডাকবে? ওরা পছন্দ করেন না তাই ডাকেন না।”

গল্পের গরু গাছে ওঠেছে, এখনকার সিরিয়াল দেখার যোগ্য নয়, বিস্ফোরক অভিনেতা বিল্পব চ্যাটার্জী

বর্ষীয়ান এই অভিনেতা আজ‌ও নিজের মত কাজ করে যাচ্ছেন‌। নিজের পরিচালনায় ‘অভিমুন্য’ ‘বিদ্রোহিনী’, ‘চোর ও ভগবান’ নামের তিনটি ছবি বানিয়েছেন, লেজেন্ডারি নাটক ‘শকুনির পাশা’ লিখেছেন, আর‌ও প্রচুর রসদ জমা আছে তার ডাইরির পাতায়, বড় সুযোগ এলে একদিন সে সবের প্রকাশ করে ইন্ডাস্ট্রিকে ভালো কিছু কাজ দিয়ে যাবেন তিনি।

Related Articles

Back to top button