বিনোদনভাইরাল

রানাঘাটের রানু মন্ডলের পর এবার দুর্দান্ত গান গেয়ে ভাইরাল চা-বিক্রেতা বিপাশা দাস

যার প্রতিভা যার থাকে তা ঠিক কোন না কোনদিন বিকশিত হবেই। এক প্রবাদ বাক্যেই রয়েছে এটি। অর্থাৎ প্রতিভাকে কখনো কিছুতেই দমিয়ে রাখা যায় না। অভাব তাড়না এবং নানা রকম প্রতিকূলতার জয় করে প্রতিভা ঠিকই বিকশিত হয়। এবার এমনই এক দৃষ্টান্ত হলেন নদীয়ার চাকদহের বাসিন্দা তথা চা বিক্রেতা গৃহবধূ বিপাশা দাস। সোশ্যাল ওয়ার্কার স্বনামধন্য অতীন্দ্র চক্রবর্তীর হাত ধরে তিনি এবার পৌঁছে গেলেন রেকর্ডিং স্টুডিওতে।

কোনরকম প্রশিক্ষণ ছাড়াই একেবারে মা স্বরস্বতীর বাস সেই গৃহবধূর কন্ঠে। তবে আর্থিক দুর্দশার কারণে ছোট থেকেই তার বাবা কোনভাবে গান শেখাতে পারেন নি মেয়েকে। তানপুরা, হারমোনিয়াম, সেতার কিংবা যে কোন ধরনের মিউজিকাল ইন্সট্রুমেন্ট এ কোন রকম ভাবেই প্রশিক্ষণ পাননি তিনি, শুধুমাত্র ভরসা ছিল রেডিও এবং টিভির পর্দা। শুনে শুনেই গান গাইতেন বিপাশা। গানের প্রতি গভীর ভালোবাসা থেকেই বিয়ে করেছিলেন ঢোলবাদক স্বামীকে। সংসারের অভাব অনটনের কারণে পাড়ার মোড়ে ছোট্ট চায়ের দোকান চালিয়েই বড় করে তুলেছেন তাঁর এবং তাঁর ঢোলবাদক স্বামীর-সন্তানদের। টিনের চালের বাড়িতে দুমুঠো ভাতের অভাব থাকলেও সুখের কোনরকম অভাব নেই। ছুটি পেলেই স্বামীর সঙ্গে সংগীতচর্চার মেতে ওঠেন বিপাশা।

তবে এবার সোশ্যাল ওয়ার্কার অতীন্দ্র চক্রবর্তীর হাত ধরে তিনি পৌঁছে গেলেন একেবারে রেকর্ডিং স্টুডিওতে। কথাকার সুপ্রিয় চক্রবর্তী এবং মিউজিক ডিরেক্টর জয়দীপ চক্রবর্তী তত্ত্বাবধানে একটি গান রেকর্ড করে ফেলেছেন ইতিমধ্যেই। গান রেকর্ড করার দিনেই অতীন্দ্রকে তিনি ধন্যবাদ জানিয়ে বলেছেন, তার জন্যই আজকে এতটা সম্ভব হয়েছে। এর পাশাপাশি অতীন্দ্র বিপাশাকে জানান যে তার প্রতিভা সকলের কাছে জানুক সকলের কাছে পরিচিতি পাক এমনটাই আশা করেন অতীন্দ্র। একজন সামান্য চা-বিক্রেতা থেকে আগামী দিনের হয়ে উঠুন অনেক বড় শিল্পী এই শুভকামনা সবারই।

এর আগেও অতীন্দ্র চক্রবর্তীর হাত ধরে একেবারে স্টেশন থেকে মুম্বাইয়ে পাড়ি দিয়েছিলেন রানাঘাটের রানু মন্ডল। নিমেষেই সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে তিনি রানাঘাটের স্টেশনে ভবঘুরে হয়ে ওঠেন বলিউডের প্লেব্যাক সিঙ্গার। তবে অসংলগ্ন আচরণের আবারো তাঁর জনপ্রিয়তায় ভাটা পড়েছে। সম্প্রতি ‘ইন্ডিয়া টেস্ট ২৪’ নামক একটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে আপলোড করা হয়েছে বিপাশার একটি মিউজিক ভিডিও। যেখানে ইতিমধ্যেই ভিউজ সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৫০০০।

Related Articles

Back to top button