বিনোদন

‘মম চিত্তে হাতি নাচে’, শোভান-বৈশাখীকে তীব্র কটাক্ষ অভিনেতা ভাস্বর চ্যাটার্জীর

চলতি বছরের পুজোর সবচেয়ে জনপ্রিয় জুটি হলেন রাজনৈতিক মহলের শোভন এবং বৈশাখী। শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় এবং তাঁর বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় এর বন্ধুত্ব বেশ পুরনো এবং তা দর্শক মহলে কারোরই অজানা। পুজোর ফটোশুট থেকে পুজো প্লান এবারে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের তরফ থেকে বারবার সামনে এসেছে তাদের নানা রকম ইন্টারভিউ এবং নানা রকম দৃশ্য। সেই সব দৃশ্যতে দেখা গিয়েছে কখনো একে অপরকে কেন্দ্র করে নিজেদের গোপন তথ্য ফাঁস করছেন, আবার কখনো নেচে চলেছেন এছাড়াও দেখা গিয়েছে কলকাতার রাস্তায় ঘোড়ার গাড়ি চড়ে ঘুরছেন দুজনে।

এইসব ভিডিওগুলি সামাজিক মাধ্যমে জনপ্রিয়তা পাওয়ার পরই একটা সুযোগ ছাড়েননি নেট নাগরিকেরা। ‘বুড়ো বয়সে ভীমরতি ধরেছে’ এরকম মন্তব্য থেকে শুরু করে ‘দশমীর পর এদেরও বিসর্জন দেয়া হোক’-এর মত নানা রকম মন্তব্য এবং একের পর এক কটাক্ষ বান ধেয়ে এসেছে তাদের উদ্দেশ্যে। আর কিছুটা পথ হেঁটেই দেখা গেল নেট নাগরিকের এই কটাক্ষ বানে সামিল হয়েছেন অভিনেতা ভাস্বর চট্টোপাধ্যায় ও। দেখা গিয়েছে কটাক্ষ করে একেবারে গোটা একটা ছড়া লিখে ফেলেছেন তিনি।

সেই কবিতায় মিডিয়াকেও কটাক্ষ করতে ছাড়েননি অভিনেতা। ‘ডিজি মিডিয়া নিউজ চ্যানেল দেয় কভারেজ/ বারে টিআরপি কিন্তু ব্যাপারটা এভারেজ।’ ইত্যাদির মতো কবিতার লাইন ফুটে উঠেছে অভিনেতা ভাস্বর চট্টোপাধ্যায়-এর সামাজিক মাধ্যমের দেওয়ালে। এছাড়াও শোভন দেব চট্টোপাধ্যায় এবং বৈশাখী বন্দোপাধ্যায়কে নিয়ে লিখেছেন, ‘মম চিত্রে হাতি নাচে ঘোড়া নাচে / কত হইচই কত হইচই কত হইচই/ গোটা বঙ্গ দেখে রং দুই অঙ্গে করে রই করে রই করে রই।’

সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রেন্ডিং বিষয় নিয়ে কোনদিনই বিতর্ক থেকে কম যাননি অভিনেতা ভাস্বর চট্টোপাধ্যায়। তাঁকে নিয়েই প্রায়শই দেখা গিয়েছে সামাজিক মাধ্যমের বুকে ট্রোলিং। ঈদে রোজা রাখার ছবি নেট মাধ্যমে শেয়ার করতেই সকলের চোখ রাঙানির শিকার হতে হয়েছিল অভিনেতা ভাস্বর চট্টোপাধ্যায়কে। ব্রাহ্মণ পরিবারের সন্তান হয়েও তিনি কিভাবে এমন কাজ করেছেন সেই নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন নেট নাগরিকেরা। এমন কি দেখা গিয়েছিল ভোটের পর অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষকে সরাসরি বিঁধেছিলেন অভিনেতা ভাস্বর চট্টোপাধ্যায়। বরাবরই স্পষ্টবক্তা হিসাবে নেট পাড়ার এক অংশের মন করেছেন অভিনেতা ভাস্বর।

এইবার তার লেখা ছড়া ও যথার্থ মনে করেছেন অনেক নেট নাগরিকেরাই। অনেকে অভিনেতার সমর্থনে লিখেছেন, ‘দাদা অসাধারণ, কতই রঙ্গ দেখি দুনিয়ায়।’,’দারুন দারুন’,’জব্বর লিখেছে তোমার কলম! একেবারে খাঁটি সত্য কথা লিখেছ! আর সহ্য হচ্ছেনা! মনে হচ্ছে আমার হাতে যদি ক্ষমতা থাকতো তাহলে এসব ন্যাকামি আর নোংরামো বন্ধ করে দিতাম, সমাজকে কলুষিত করার এ এক অভিনব পন্থা বের করে ফেলেছে এরা।’

Related Articles

Back to top button