বিনোদন

‘আমরা এত ধনী কেন?’ মা টুইঙ্কেলকে জিজ্ঞেস করেছিলেন অক্ষয় কুমারের ছেলে আরভ

অক্ষয় কুমার (Akshay Kumar) এবং টুইংকেল খান্নার (Twinkle Khanna) দুই সন্তান আরভ এবং নিতারাকে নিয়ে সুখী গৃহকোণ তাঁরা। প্রাক্তন বলি অভিনেত্রী তথা লেখিকা টুইংকেল খান্নার কথা বলার ধরণ দর্শক মহলে বরাবরই বেশ জনপ্রিয়। তাঁর এই সোজাসাপ্টা কথা বলার ধরন দর্শক মহলে তাই সব সময় প্রশংসিত। কথায় কথায় জানা যায়, একসময় টুইঙ্কেলকে তাদের বড় ছেলে আরভ জিজ্ঞাসা করেছিলেন, তাঁরা অন্যদের তুলনায় কেন এত বড়লোক! জানা গিয়েছে, সেই প্রসঙ্গে প্রত্যুত্তরে টুইংকেল একেবারে সোজাসাপ্টা উত্তর দিয়ে তাঁর ছেলেকে নির্দ্বিধায় বুঝিয়ে দিয়েছিলেন সবকিছু।

সম্প্রতি ইন্ডিয়ার ইউটিউব চ্যানেলে আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন টুইংকেল খান্না। ইনফোসিস ফাউন্ডেশন সংস্থার চেয়ারপারসন তথা জনপ্রিয় লেখিকার সুধা মুর্তি গল্পের মত্ত হয়ে উঠেছিলেন বলিউডের অভিনেত্রী তথা লেখিকা টুইংকেল খান্না। সেখানেই কথা বলতে বলতে প্রসঙ্গ উঠে আসে আরভের। প্রাক্তন বলি সুন্দরী জানান যে আকছার এমন হয় যে নিজেদের এত বিলাসিতা দেখে অনেকেই নিজেদের দোষী ভাবতে শুরু। এর পরেই সুধাকে টুইংকেল জিজ্ঞেস করেন কীভাবে এরকম পরিস্থিতি সামাল দেন তিনি। কিভাবেই বা নিজের সন্তানকে সামলান সেই পরিস্থিতিতে!

এই জবাবে ইনফোসিস ফাউন্ডেশন সংস্থার চেয়ারপারসন জানিয়েছিলেন, তিনি তাঁর সন্তানকে এক আদিবাসী অঞ্চলের উদাহরণ দিয়ে বুঝিয়ে ছিলেন শত প্রতিভা থাকা সত্ত্বেও পরিস্থিতির জন্যই তারা সব কিছু থেকে বঞ্চিত। তাই আজ রোহান যা পাচ্ছে তা যেন কখনোই সে হেলায় না হারায়। সবকিছু সে যেন উপযুক্ত মর্যাদা দেয়। তার কথা শেষ হতেই প্রাক্তন অভিনেত্রী টুইংকেল খান্না জানিয়েছেন, ‘আরভ একবার আমাকে জিজ্ঞেস করেছিল কেন আর পাঁচজন মানুষের তুলনায় আমরা এত আরামে থাকি? কেন এত সুযোগ সুবিধা পাই? ওঁকে বুঝিয়েছিলাম যখন মুখে রুপোর চামচ নিয়ে জন্মেছ তখন তা যত্ন ও মর্যাদার সঙ্গে সামলানোরও দায়িত্ব তোমাকেই নিতে হবে। আর যদি সেই চামচ রুপোর না হয় প্লাস্টিকের হয়, তবুও সামলাতে হবে তোমাকেই। শুধু তাই নয়, পাশাপাশি সেই চামচ দিয়ে যখন খাবার তুলবে চেষ্টা করবে সেই খাবারের ভাগ তাঁদেরও দিতে যাদের মুখে খাবার তুলে দেওয়ার কেউ নেই!’ এখানেই শেষ নয়, নিজের বক্তব্য-এর শেষে টুইঙ্কেলের আরও সংযোজন, ‘ সেদিনের পর থেকে ধীরে ধীরে পাল্টে গেছিল আরভ। বুঝেছিল বৈভব, বিলাসিতাকে দারুণভাবে কাজে লাগিয়ে অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়ানো যায়’।

Related Articles

Back to top button